The New Horizon

A new world explored with a rational view

The Bengali Resources at Mukto Mona

with 10 comments

While I write on Richard Dawkins and Evolution in my blog, a group named mukto-mona have taken up their pens to write up in Bengali. It’s great to see people scribing for Atheism and Dawkins in Bengali. Let me refer you all to some of the best resources available in Bengali.

1) The first chapter of The God Delusion.
2) A book on Evolution by Bonnya Ahmed – continued for multiple chapters. It is also available as a book at Bangladesh Ekushe Boimela.
3) A Richard Dawkins article on Religion and Evolution.
4) The Journey of Science to find Life – An excellent write up on modern science (especially focussing on the roots of Universe and what is Life) starting from Big Bang to Extraterrestrial life, divided into multiple parts.

The life of Charles Darwin is described in Bengali.

And of course, anybody want to publish their views in Bengali, can send it to them or join a yahoo group called mukto-mona. There are numerous good articles both in English and Bengali published at the site. I bet that anybody will enjoy most of them. To a Bengali living in West Bengal, I would recommend these article since they should know how close they are to someone living accross the border – in Bangladesh.

Atheism, Bangladesh, Bengali, Darwin, Dawkins, Evolution

Advertisements

Written by Diganta

June 12, 2007 at 5:01 am

10 Responses

Subscribe to comments with RSS.

  1. Hi,
    Thanks for mentioning our work in your resourceful blog. To be frank, it’s rare to find out someone from Bengali origin who is marinating a blog on atheism, theory of evolution etc. You are also welcome to write in our forum too.

    Is it possible for you to change the link of Bonna’s book (Bibortoner poth Dhore). Here is the link where you can find all the chapters of her book:
    http://www.mukto-mona.com/Articles/bonna/book/index.htm

    We have also published another book basically on origin of life and search for intelligence in universe (“Mohabisshe Pran O Buddhimottar Khoje”), which I think would also carry your interest. Here is the link:
    http://www.mukto-mona.com/Articles/life/index.htm

    Besides this, you can also check the following section of our site

    a) MM science page:
    http://www.mukto-mona.com/new_site/mukto-mona/muk-science.htm

    b) MM rationalism page:
    http://www.mukto-mona.com/new_site/mukto-mona/muk-rationalism.htm

    c) “Jukti”: An online magazine on freethought, skepticism and rationalism:
    http://www.mukto-mona.com/project/2007books/yukti/index.htm

    Regards
    Avijit Roy
    On behalf of mukto-mona.

    Avijit Roy

    June 13, 2007 at 7:19 pm

  2. Thanks a lot Avijit-da. I have actually bought all three books in this years Ekushe Boimela and planning to donate them to my school. Since I visit Bangladesh only once a year, I’m looking forward to more resorces this year.

    Diganta

    June 14, 2007 at 4:22 am

  3. hi diganta:
    congrats for a wonderful blog! much like what avijit has said, freethinkers in general are always a minority in the world and almosr rare in our south asian socities, where most people are divided into hindu, muslim, sikhs. etc identity. i’m sure- your work will encourage many more of the region.

    special thanks for your reference of mukto-mona. btw, do you know, we are ttrying to obtain permission to translate richard dawkins’ “god delusion” into bangla under the title “ishwar probonchona”?

    do keep in touch,
    jahed ahmed
    http://www.mukto-mona.com
    NY
    06.14.07

    Jahed Ahmed

    June 15, 2007 at 5:41 am

    • Hi Jahed,
      I don’t know from where you are. Do you want to endanger your life by translating “God delusion” in Bangla? Most of the people in this sub-continent are mad either this way or that way. But hats off to you for having a beautiful rational mind.

      Dr J Bhattacharjee

      June 3, 2011 at 1:30 pm

  4. translate richard dawkins’ “god delusion” into bangla under the title “ishwar probonchona” – Yeah, I know and I am thrilled about the possibility.

    Diganta

    June 15, 2007 at 6:24 am

  5. Yes. I like the way you are thinking. I also used to think like that.

    Bengali Forum

    February 17, 2008 at 9:37 am

  6. AT LAST “UNIFIED SCRIPT”, THE MAGIC SCRIPT INVENTED
    ABSTRACT : Men speaking in various languages have got tremendous affinity and concern for their own language or mother tongue. In the past many endeavors to change or replace the same has been found to have faced violence. Same, however, is not the case with the script used for writing languages. Scripts are used for merely transferring the ‘vocal’ language. For thousands of years, experts imagined, dreamt and then endeavored numerous times to invent “Unified Script” through which, they expected to write all the languages of this world. All endeavors to this end have so far been proved futile because of genuine reasons. However, in November 2009, a new proposal for Unified Script has been published in a copyrighted book (Ref : “SUS for Writing Multiple Languages”, Trafford Publishing, ISBN: 9781426909399). It is not possible to openly discuss everything written there because of copyright restrictions. But from all indications it seems that this one i.e. SUS has got the quality and potentiality to become first Unified Language capable of writing all languages of this world. In this article I shall briefly narrate the various qualities of SUS that renders it to such a high level.

    INTRODUCTION :
    After sign language, vocal language is the most important medium for expression of ideas. In this language, independently identifiable single or multi-syllabic sounds are known as words. A number of words used one after another in a definite order and capable of creating a sense is known as sentence. In human civilization the use of sentences led to the generation of Language. Even though language opens up the bridge of communication between various groups of people, dissimilar languages act as barriers. When various languages are written by different types of scripts, these further tighten the barrier. Something that can level this barrier is the Unified Script.

    Men usually retain great love and concern for their respective languages, whatever complex or peculiar those might be felt by others. However, there is absolutely no reason for them to have any ‘blind’ affection for the script. Scripts act as mere carrier of language and so long the verbal language remains unchanged, it matters nothing if there is any change in or replacement in the scripts. Naturally, if a new script can ‘carry’ a language more easily and efficiently, then there should be no reason why it should not be accepted by all. With this possibility in mind, for over thousand years the experts of various languages dreamt of “Unified Script” capable of writing most, if not all, of the languages of the world.

    PAST ENDEAVORS FOR CREATING UNIFIED SCRIPTS :
    The known endeavor for inventing Unified Script goes back to 13th C AD. In 1260 Kublai Khan commissioned a Tibetan Lama to create a new national script. He devised the PHAGS-PA script in 1269. Notable features of this script are :
    (i) Syllabic alphabet – each consonant having an inherent vowel sound. Other vowels are indicated by symbols that appear below the consonants.
    (ii) Writing direction: vertical from top to bottom and from left to right.
    (iii) There were three different styles of writing in the Phags-pa alphabet: (a) the Standard script, which was used in Chinese and Mongolian printed texts and documents, (b) the Seal script, which was used mainly for official seals and also for some inscriptions on monuments and (c) the Tibetan script style, which was used mainly for books titles and temple inscriptions.
    (Link : http://babelstone.blogspot.com, Free Phags-pa fonts available at :
    http://www.babelstone.co.uk/Fonts/ and http://www.valdyas.org/conlang.html. Further information about the Phags-pa Script may be collected from : http://www.babelstone.co.uk/Phags-pa ).

    However, the Pags-pa script did not become popular. Even though the ‘inventors’ of Pags-pa script claimed that the scripts were easy, in fact those were not so. There was no logic in the gradual change of the letters, which rendered those difficult to remember.

    Another notable Unified Script invented in 1999 is the INTERBET. Interbet is the abbreviation for International Phonetic Alphabet. Vitaly Vetash, an artist and a linguist from Russia worked from 1977 to 1999 for creating it. The names of letters in Interbet are mostly based on the ancient Phoenician and Greek alphabets, as well as the letters of the other alphabets.

    The number of letters in this alphabet is 45. The letters are based on the combination of Latin alphabet and some Cyrillic letters and some were invented by the author. The author proposed some linguistic signs also for modifying the sounds of the letters. In this system the same letters can be used to represent a number of phonemes.

    The author claims that the number of letters in Interbret is sufficient to write all of the world’s most widely-spoken languages. The author also claimed that this alphabet is suitable for a practical, international and universal system for writing any language. In practice however, it showed so much of problems that it did could not get popularity.

    “SUS”, THE UNIFIED LANGUAGE OF 2009 :
    Details of SUS, the latest type of Unified Language has been published only in November 2009 in a copyrighted book titled “SUS for writing multiple languages”. It is not possible to explain all details of this script for obvious reasons. But this script has got exceptional and admirable qualities that may make anyone hopeful that probably this one is going to open up the possibility of a unified script in a global scale.

    SCRIPT : All the letters of SUS are supposed to be contained within a square box. Thus the letters are free from the hazards observed in the languages having letters with protruded limbs around. The letters are initiated first by a horizontal line at the middle of the square. The following stroke is a vertical line having length equal to half of the side of the square. The third line is a small vertical line. As for use, the large vertical line is used along the periphery of the square, where as the small vertical line is used parallel to it, but inside the square.

    As for placing the vertical lines, these are used in the following sequences : (01) On the left and below the horizontal line, then (02) On the left and above the horizontal line, then (03) On the right and above the horizontal line and finally, (04) On the right and below the horizontal line. In other words, being originated at the left lower cornet the lines move in the clock-wise direction.

    As for letters, SUS uses the letters used in the language proper. Thus in English language, it uses the Roman letters, in Bengali, Bengali letters and so on so forth. In assigning scripts for the letters, SUS maintains the mathematical serial number. For this purpose, at the very outset SUS divides the letters of any language into groups of 5. Thus Roman alphabet is divided into the following groups : Group 01 : a, b, c, d, e. Group 02 : f, g, h, i, j. Group 03 : k, l, m, n, o. Group 04 : p, q, r, s, t. Group 05 :u, v, w, x, y. Group 06. z. Similar system is followed in case of other languages also.

    The first letters of each of the above groups have been mentioned in SUS as Group heads. Thus the group heads in Roman alphabet are : a, f, k, p, u and z.

    Then, SUS goes for proposing scripts first for the group heads. The FIRST group head or ‘a’ is written by ‘the horizontal line and the vertical line placed at its left below’. Following the principle of clock-wise direction, the SECOND group head or ‘f’ will be written by ‘the horizontal line and the vertical line placed at the left above’, the THIRD group head or ‘k’, by ‘the horizontal line and the vertical line at the right below’ and so on. By following this principle it is possible to create as many as 8 heads. Later, by using a half size vertical line it is possible to create another 8 group heads. With 5 letters in each group, 16 group heads can create as many as 80 letters or signs. Most of the alphabets of prominent languages have letters less than this number.

    After the group heads have been created, SUS proposed the principle for creating the remaining 4 letters of each group. Say, we want to write b, c, d and e letters of the a-group. If the small vertical line is added in the left-below position of the script used for writing the letter ‘a’, it would give letter ‘b’, if the small vertical line is added left-above, it would create ‘c’ and so on so forth. It is seen that if this extremely simple principle can be explained to a child, then he himself would be able to recreate any letter of his alphabet.

    LANGUAGES USING LETTERS ONLY : The languages using only letters can run well after the scripts of their letters have been created in the above way. In case of language having capital and small letters, the above scripts will be treated as small letter. Then placing a small horizontal line on top of the square would make it a capital letter.

    LANGUAGES USING LETTERS AND LETTER-SIGNS : The middle portion of the SUS scripts have been kept free such that the languages using letter sign (or vowel-sign) can use their signs here. These signs will be vertical lines, where the signs would be indicated by various types and sizes of lines.

    LANGUAGES FROM LEFT OR RIGHT : The SUS scripts can be used for both types of languages, i.e. those starting from left or right with equal advantages.

    LEARNING THE LANGUAGE :
    SUS proposed that in learning any Language through this script, the learners would first need to memorize the alphabets of his language. This can easily be done in the conventional method of picture book. In such books picture of object or action are arranged one after another, where the name of the object or action starts with the sound of the letters of the alphabet. After the learner can memorize all the letters, he is required to associate the script with the sound. At this stage SUS proposes for dividing the letters in groups of 5 and to remember the group heads. After he could pronounce the group heads, he should be taught how the various group heads are created by using only a few horizontal and vertical lines. The learner should not need much time (two or three days should be enough) to learn these. After they have learnt these, they may be taught how the subordinate letters of each group are created from the group heads. No student with normal intelligence should need more than five days to learn those. While there ends the case of the language using only letters, those using both letters and letter-signs would have to use some additional signs at the middle. Learning these will be a bit hard, but should not take more than two weeks. It is said that now, a child needs 6 to 12 months to identify and clearly write the scripts of his language. In comparison, no normal child should need more than one month to acknowledge and write the SUS.

    Those accustomed to figurative letters may think of ‘letters by strokes’ as peculiar. However, at least three great nations viz. Japanese, Chinese and Koreans are using obviously complex and complicated stroke-scripts with grand success.

    ADVANTAGES : Some of the advantages of SUS are the following :
    (01) The scripts of any language in fact play the role of carry bags. SUS is extremely simple to identify, remember and write and it is capable of writing any or all languages of the world. The languages having problems with their complex and difficult scripts may be immensely benefitted by replacing those by SUS.
    (02) SUS written by strokes are easier than those written by long, curve, slanting and zigzag lines.
    (03) SUS is contained with a square and hence free from the criticism of having extended limbs around.
    (04) SUS is easy to identify and write because it uses minimum number of strokes. Most of the letters have only 2 or 3 strokes.
    (05) In SUS there is absolutely no endeavor to assign scripts depending upon the sounds of various letters. That retains the original pronunciations of the language as it was.
    (06) The principle for which it has been possible to write so many letters with so less number of strokes is, it has utilized not only the strokes, but also their relative locations to create letters.
    (07) The script is extremely easy to remember because those can be automatically created sequentially one after another by following one simple principle.
    (08) There is no tracing back, twisting of muscle, drawing curve or angular lines etc. in SUS. Naturally it is free from the fear of ‘good / bad handwriting’ and confusion in deciphering. Also it can be written at greater speed.

    LEARNING MANY LANGUAGES :
    Does SUS help in learning many languages ? The answer is : it partially helps. Learning any new language follows the following processes stages : (i) Memorizing the alphabets (as done from the picture books), (ii) Identifying the script assigned to particular sound or letter, (iii) Learning to writing the letters and signs, (iv) Studying grammar and other uses of words, phrases and sentences etc. In case a learner already knows any language through SUS, and now intends to learn another language, he would have to go through the stages (i) and (iv) only. And would have to spend negligible time for the stages (ii) and (iii). Needless to mention that it would be of immense help.

    CONCLUSION :
    Definitely SUS as a Unified Language is not still known to many because it has been published only in November 2009. In such a situation there cannot be any statistics or information for comparing this one with any traditional scripts. It is quite probable that the adults might feel a bit reluctant to change their scripts. However, a little observation may reveal that this script is extremely easy in comparison with any traditional script. And once someone learns SUS, the traditional scripts with their twists, tracing back, curve lines, angular lines etc. might appear like night mares. If a new learner is given option to choose between the SUS and the traditional script, there remains every possibility that he would prefer this one.

    If a normal child needs 6-8 months to complete the 2nd and 3rd stage of learning alphabets, (i.e. Identifying the letters and writing letters and signs), he may need hardly 1 month in learning SUS. In such a case, there may be huge saving in (i) learners’ teaching time, (ii) teachers’ time and labor, (iii) cost on stationary etc. The cumulative saving for the governments and that in the global scale can be enormous.

    In order to learn Braille language the blind people need to learn English language. If SUS is used in writing the native languages, then it will be possible for such people to read and write in their own languages. These simple scripts may be typed with key boards with only 15 to 20 keys. If SUS is accepted by a number of languages, it would be possible for the mobile phone companies to make use of all those languages through a single script. That may be a great saving for these companies. SUS has taken birth only in November, 2009. It would soon enter the field to face the competitors. It would come out victorious in this competitive world only if it retains that quality.

    References :

    ‘SUS’ FOR WRITING MULTIPLE LANGUAGES, By Mira Sarma-Parai. Trafford Publishers. November 2009. (Link : http://www.trafford.com/Bookstore/BookDetail.aspx?Book=163609 )

    SHRABANI SARMA, B.SC. Engg. (Chemical), PMRE student, BUET

    Prof. Bijon B. Sarma

    December 11, 2009 at 9:57 am

  7. The SUS can script can advantageously be used for writing Bengali and “Correct Bengali”. It may be mentioned that at present the weaknesses with Bengali language are :
    (01) The scripts are extremely difficult to recognize and more difficult to write.
    (02) There are tremendous possibilities of “SPELLING MISTAKE” due to the existence of so many “nearly-same sounding letters and letter-signs”.
    (03) The Bengali script with their letter-signs creates confusions.

    USE OF SUS SCRIPT CAN ELIMINATE ALL.

    Prof. Bijon B. Sarma

    January 3, 2010 at 3:28 am

  8. The challenges of Islam

    I recently chanced upon a Bengali book entitled “Santrash Protirodhay Islam”. The English translation of the ‘title’ will be ‘Islam in defense against terrorism’. The book was published by Islamic Foundation of Bangladesh. After reading the theoretical bla…. bla…bla, certain points raised in my mind:

    1. Present day’s geographical area of Bangladesh has been Muslim majority since four to five hundred years. But today, after all teaching and preaching, what proportion of Bangladeshi Muslims has been following the true Islam (not the religious retuals/obligations) or is allowed to follow? Principles of Islam, as written in the book, are universally true. But does majority of Bangladeshi Muslims know, understand or inculcate these principles.

    2. Islam is, no doubt, a religion of peace and so are other religions. No religion preaches violence. Thus there is nothing special with Islam. The problem starts with the “holier than thou” interpretation of Islam. Difference is the law of nature including religious affiliations. Why Islam can not accept this fact and ‘live and let live’?

    3. The second weakness in the interpretation of Islam is its tendency to extrapolate the sixth and seventh century ‘jahiliat’ of Saudi Arabia to the whole world for all time to come till every body becomes Muslim. Why all present day Muslim countries are not heavens? Why there is heaven and hell socio-economic disparity between Saudi Arabia and Bangladesh? Why enough ‘jahiliat’ exists in Bangladeshi Muslim society even now?

    4. The main Islamic scriptures like ‘Hadith’, ‘Fiqh, Tafsir’ and others were written/complied/interpreted by different early Islamic scholars. The unstated assumption attached with these books is the absolute absence of ‘bias’ (a commonly asked question in any review). All those scholars were human beings not free from bias. But the denial has led to the most dangerous postulate that only these books are true and with Qur’an can solve all the problems of human society. It is something like communism during the peak period of USSR when a non-believer in communism was thought to be a mad person.

    5. The concept of ‘Dar-ul-Isam’, ‘Dar-ul-Amn’ and ‘Dar-ul-Harb’ is extremely dangerous in the present world. It puts religion (Islam) ahead of nationality. In Islam religion and politics are inseparable. Thus it negates the very basis of multi-religious countries and divides the world in to three groups of countries from the view of Islamic political power in those countries. It stressed the mind set of Muslims for the aspiration of absolute Islamic political power even in ‘Dar-ul-Amn’ and ‘Dar-ul-Harb’. The concept was justified in early Islamic period for the sake of protection and expansion of Islam. But today, it does not have any relevance. However, ‘no change’ is the other name of Islam. In West Bengal, many communist leaders are Muslims though communism fundamentally does not believe in Allah or religion. Here, personal religious faith and political affiliation have been separated which Islam will never accept. Fortunately they are in India. Otherwise they would have been killed or driven out of the country.

    6. Islamic preachers/teachers/Mullas never speak of good things about other religions or advocate peaceful co-existence with other religious groups. If some times they do so, it comes from the lips only for some compulsion and not out of conviction. In the process they try to make the whole world like seventh and eighth century Saudi Arabia. When they naturally fail, hatred is directed towards the ‘Infidels’.

    7. Orthodox Muslims keep beards, wear pajamas with it lower end above ankle, use head gear/skull cap and ‘itr’. All these were in the personal life style of the Prophet Mohammad (pbuh). Though Muslims term such imitation of Prophet’s life style as “Sunna”, in actual this is a form of hero loving boarding worship only.

    8. In Indian sub-continent, Islam was substantially spread by Sufis and Saints. Many down trodden and low caste Hindus converted to Islam because of them who preached equality, love and universal brotherhood of Islam. This is particularly true for Bangladesh. But today, the hard core ‘Sunnis’ disown those saints. By the by, does a Bangladeshi Muslim is regarded as equal by a Saudi Muslim? What is the meaning of ‘Azlaf’, ‘Ashraf’ and ‘Arzaal’? Why the bla bla of casteless/classless Islam?

    9. It is not understood how Bangladesh has been benefited after being promulgated as Islamic country? Has the crime rate gone down? Has number of poor people reduced? Are political parties free from corruption? It has only helped the semiliterate Mullahs to control the psyche of the people for rituals, intolerance and Jihad. Does Islam permit persecution of the religious minorities (in Bangladesh)?

    10. The theft of 200 tolas of gold from Dhakeshwari Temple in Dhaka (Bangladesh capital) during January 2011 was as heinous a crime as desecration of a mosque. But what is the reaction of Bangladeshi Muslims? Majority must be happy for the blow it gave to Hindus’ religious sentiment. Is it Islam? If so, then Islam is no better than a false dogma far away from what it claims to be.

    11. The intolerance, hatred and continuous torture by Bangladeshi Muslims on its ever decreasing Hindus population are nothing new and fall out of Babri Mosque or Gujarat. It has all along been a continuous state sponsored activity. There has never been a Hindu backlash in India against those rapes, murders, forceful conversions of Bangladeshi Hindus. Because majority of Indian Hindus are non-Bengalees with no interest in Bangladesh and West Bengal can be proud of its secular socio-political approach.

    12. During post 1947 era, the proportion of Muslim population in West Bengal has increased from 15 per cent in 1951 to 30 per cent in 2011. Many Bangladeshi Muslims migrated and settled in West Bengal due to economic reason. There must be some thing indigenously very wrong about the interpretation of Islam and its practice in Bangladesh. The criminal mindedness of a big proportion of Bangladeshi Muslims helped by all political parties, under the guise of a ‘false Islam’ is responsible for its continuous Hindu bashing. The draconian ‘Vested Property Act’ is another burning example. Even many of Mujib’s party men during his time took the advantage of this act to grab vast Hindu properties.

    13. Loss of Hindu blood during the liberation of Bangladesh can not be denied. The proportions of Hindus and Muslims killed during its liberation will speak for the fact. But today Hindus in Bangladesh are becoming a ‘lost tribe’. Bangladeshi Muslims are very vocal about the atrocities of Israel and US on Muslims. But they fail to see that they have been doing the same thing on Hindus of their own country. Most of the Bangladeshi Muslims either do not know or care to know or allowed to know what Islam is. They have made it a very ‘mean religion’.

    14. When USSR invaded Afghanistan, the Afghans had all reason and right to drive USSR out. But, why a religious hue was given to those resistance fighters leading to cruel and dark aged Talibanisation? If one is not a good human being how can one be a good Muslim?

    15. Even after the time of Prophet Mohammad (pbuh), Islam remained truly a religion of peace, harmony and justice during early Khylafat. With the passage of time, Khalifas lost political control and became only a titular head of Islamic world. Terror and intolerance were attached to Islam by the Central Asian Turk, Mongol and Afghan Muslim invaders. Indian sub-continent suffered the repeated carnage made by many of those invaders over a long period from Sultan Mahmud of Ghazni to Afghan Abdali. Following each invasion, they returned back with booty and thousand of Hindus as slaves from India. Many present day Talibans of Afghanistan may trace back their ancestors in Hindus of old Punjab, Sind and NWFP who were taken as slaves.

    16. ‘Wahhabi’ movement in nineteenth century preached pure and original form of Islam and inculcated a high degree of orthodoxy. The third problem in the interpretation of Islam started from that point. Since Islam is accepted as complete way of life and since the Prophet Mohammad (pbuh) himself claimed to be the last in the chain, orthodoxy, stagnation and intolerance have become the main sources of inspiration for majority Muslims who started suffering from ‘adjustment disorder’ in the modern socio-political context with people of other religions. They justify their terror activities or oppressions of religious minorities in the name of Jihad.

    17. The fourth problem is connected with the hating of Western materialistic life style by the orthodox Muslims. This is an attempt of psychological romanticization of seventh century Arabian simple way of life (due to general poverty). Why the present day rich Saudis do not live in the tents pitched in oasis surrounded by camels? Has any infidel compelled them to live in palaces with all Western amenities? Even hardcore ‘Talibans’ are using the high tech Western communication system to spread their terror activities. What a hypocrisy?

    18. ‘Tablighi’ activities in Indian sub-continent since 1926 have the positive side to reinstall and teach Islam and its rituals to Muslim masses. However, in the process Muslims find themselves as an ‘exclusive and isolated group’ very different from others. How with this mind set can a Muslim adjust in a pluralistic world of global village today? Do Tablighi activities include teaching of respecting other religions also? This is a million dollar question. This is the fifth problem of interpretation of Islam.

    19. The isolation of Muslims has also been made by their over emphasis on Madrasa education particularly in Indian sub-continent. During pre-colonial period, Madrasa education could serve the public and private life requirements of Muslims in India. Now it can not. Besides majority of Madrasas are nothing but ‘literacy centres’ for religious training. The madrasa products are fit for the jobs of Imam, Maulavi, Qazi etc.. And thus they remain only in the limited sphere of religious activities far away from modern world and drag the psyche of Muslim masses backward. This preoccupation of retaining the Islamic heritage does not allow majority of Muslims to integrate in a multi-religious society. In effect, Muslims have become unnecessarily touchy about their religion. Sir Saiyid Ahmed Khan fought against this mind set of Muslims in nineteenth century.

    20. Osama-bin-laden was an US stooge during the fight against USSR in Afghanistan. He started treating US as enemy when Saudi Arabia sought US help on its soil during first Gulf war. Osama took the help of US infidels to fight USSR infidels in Afghanistan but could not accept the Saudi compulsion of bringing US infidels to the holy soil of Arabia for its own protection. What more a pathological state of mind could it be?

    21. The term “infidels” in Islam connotes extreme intolerance and hatred. This, however, does not dilute the unwanted big brother like muscle flexing attitude and actions by US everywhere in the world. US are pushing war and Muslims are pushing Islam. Over dose of both has started causing global indigestion.

    22. Over the past centuries, all the religions have changed except Islam. The changes in other religions were outcome of changes in socio-political sphere. Islam stood rock solid against any change and feels proud of it. The very few people who tried to modernize Islam have been sidelined, ostracized, murdered or driven out of the country. It is beyond any reasoning that the Muslims can live now in an imaginary seventh century socio-political setup of Saudi Arabia.

    23. In Islam, there is no concept of ‘Priest’. It does not permit any intermediary between Allah and his “Banda”. This point has got unnecessary propaganda for no good reason. Presence of priests in many other religions is apparent. There was a time when these priests use to control the society and psyche of followers for their vested interest. But today, they have lost all such preeminence. On the other hand a priestless Islam has ‘Imams’, ‘Maulavis’, ‘Hafiz’, ‘Ulema’ ‘Qazis’ etc. to control the Muslim society and its psyche. In Pakistan, Bangladesh and all Islamic countries society and politics revolves around these virtual priests of Islam.

    24. I believe in idol worship and that is why I believe it as a fact that Holy Qur’an was revealed to Prophet Mohammad (pbuh) by Allah. If I don’t believe in the first, how can I believe in the second? If I laugh at idol worship, I should also laugh at the ‘hot line communication’ between old Arabic speaking Allah and the Prophet Mohammad (pbuh).

    Majority of Muslims look at every issue from the view point of Islam. This has made their vision tubular. So long the interpreters and their followers of Islam will not learn to shed their orthodox outlook and come out of exclusiveness, the problems will persist. Islam has to shed its ‘holier than thou’ attitude and try to live in a complex pluralistic society of 21st century. The present world is extremely competitive. Muslims stand or fall solely on the basis of merit and not on religious orthodoxy and isolation. Muslims around the world and Bangladesh in particular today can not mentally live in the ‘dream house’ of seventh or eighth century Saudi Arabia with a ‘misinterpreted Islam’. What Muslims need today more is another Mustafa Kamal Ataturk and not Osama-bin-Laden.
    ——————————————————
    PS: Many readers may phu…phu the write-up for the reason that I am not an Islamic scholar and have no right and knowledge to write on Islam. Well, I have done my part and the rest is your problem.

    Dr J Bhattacharjee

    June 2, 2011 at 4:08 pm

    • “সাস লিপি”, যা দিয়ে পৃথিবীর সব ভাষা লেখা যায়

      ভূমিকা:

      ইউনিফাইড স্ক্রিপ্ট বা সমন্বিত লিপি হচ্ছে এমন একটি লিপি যা দিয়ে পৃথিবীর সব ভাষা লেখা সম্ভব । সমন্বিত লিপি আবিষ্কার পৃথিবীর প্রখ্যাত ভাষাবিদদের দীর্ঘ দিনের লালিত স্বপ্ন। ত্রয়োদশ শতাব্দীতে শাসক কুবলাই খান একজন তিব্বতী লামাকে ঐ সময়ে তিব্বত ও তার আশে পাশের অঞ্চলে প্রচলিত ভাষাগুলি লেখার উপযোগী একটিমাত্র লিপি উদ্ভাবনের দায়িত্ব প্রদান করেন। এই লামা যে লিপি উদ্ভাবন করেন তার নামে পাগস্‌ পা ( লিঙ্ক: http://babelstone.blogspot.com)। বলাবাহুল্য, সঙ্গত: কারণেই এই লিপি জনপ্রিয় হয়নি। এর পর হাজার হাজার পণ্ডিত ব্যক্তি উন্নততর সমন্বিত লিপি আবিষ্কারের চেষ্টা করেন । ভিতেলী ভিতেশ নামে একজন রাশিয়ান শিল্পী দীর্ঘ ২২ বৎসর পরিশ্রম করে ১৯৯৭ সালে ইণ্টারনেট (লিঙ্ক: : http://www.astrolingua.spb.ru/ ENGLISH/ inter_eng.htm and semiravet@yandex.ru) নামে একটি সমন্বিত লিপি আবিষ্কার করেন এবং দাবী করেন যে, তার লিপির সাহায্যে পৃথিবীর সকল ভাষা লেখা সম্ভব। বাস্তব সত্য এই যে, তাদের লিপিও জনপ্রিয় হয়নি।

      ২০০৯ সালের ২৪শে নভেম্বর “সাস” সমন্বিত লিপি আবিষ্কৃত হয় । এই তারিখে এটি ক্যানাডা ও আমেরিকার ট্রাফোর্ড পাবলিশিং থেকে ‘SUS FOR WRITING MULTIPLE LANGUAGES’ (ISBN: 978-1-4269-0939-9, লেখক ঃ ডাঃ মীরা রানী শর্মা পারই ও অধ্যাপক বিজন বিহারী শর্মা) নামে একটি কপিরাইটকৃত পুস্তকে প্রকাশিত হয় । এর পর ২০১০ এর জুলাই মাসে “প্রিয় অস্ট্রেলিয়া ডট কম”-এ এ বিষয়ে একটি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয় (লিঙ্ক: http://www.priyo-australia,.au / Articles/ Bangladeshi Scholars Invented Unified Scripts to Write All the Languages of the World) । একই সালের ১৯ শে জুলাই অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরা রেডিও থেকে এ বিষয়ে একটি বেতার সাক্ষাৎকার প্রচারিত হয়, যা এই লিঙ্কটি ব্যবহার করে শোনা যেতে পারে: http://www.banglaradio.org.au/BR-Archive-2010-Summary.htm । এর পর আগস্ট ২০১০ এ জার্মানী থেকে প্রকাশিত হয় “SUS”, THE LATEST UNIFIED SCRIPT (ISBN 978-3-8383-7411-6। অধ্যাপক বিজন বিহারী শর্মা ও ডাঃ মীরা রানী শর্মা পারই ) ।

      “সাস” এর পূর্ণরূপ “শর্মা’স ইউনিফাইড স্ক্রিপ্ট” । ‘শর্মা’ এই লিপির আবিষ্কারকদের পারিবারিক উপাধি । আগে আবিষ্কৃত সকল সমন্বিত লিপিকারদের মতই সাসলিপির এই উদ্ভাবকগণও দাবী করছেন যে এর মাধ্যমে পৃথিবীর সকল ভাষা লেখা সম্ভব । এই দাবীর সত্যতা প্রমাণে সময়ের প্রয়োজন । বাংলাভাষা লেখার ক্ষেত্রে এখন যেসব সমস্যা আছে, সাসলিপির সাহায্যে লেখা হলে তার অধিকাংশই থাকবে না বলে এই উদ্ভাবকগণ দাবী করেছেন ।

      সাসলিপি কেন ?

      সঙ্গত: কারণেই প্রশ্ন উঠতে পারে, পূর্বে আবিষ্কৃত একটি সমন্বিতলিপিও জনপ্রিয় না হবার পরেও সাসলিপির আবিষ্কারকদের আশান্বিত হবার কারণ কি ? এ প্রশ্নের জবাবে প্রথমেই আলোচনা করা যাক, কেন পূর্বে আবিষ্কৃত সমন্বিত লিপিগুলি জনপ্রিয় হয়নি ।

      সমন্বিতলিপির পূর্বের সকল আবিষ্কারকই লিপি উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে প্রধানত: একটি পন্থা অবলম্বন করেছেন। এটি হল, পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষায় ব্যবহৃত বর্ণের মধ্যে যেগুলির উচ্চারণ একই বা একই রকম (যেমন ঃ বাংলা “ক”, ইংরেজী “k” এবং আরবী “কাফ”), সেগুলিকে চিহ্নিত করা এবং তারপর এই বর্ণগুলি লেখার জন্য পুরানো বা নতুন কোন চিহ্ন বা হরফ ব্যবহার করা।

      এই প্রচেষ্টার দুটি প্রধান সমস্যা আছে । প্রথমত: বিভিন্ন ভাষার বর্ণমালায় ঠিক একই উচ্চারণের বর্ণের সংখ্যা নগণ্য । আবার সমোচ্চারিত বা প্রায় সমোচ্চারিত কিছু বর্ণ থাকলেও ব্যবহারের স্থানভেদে তাদের উচ্চারণ বদলে যায় । যেমন, বাংলা “ক”, ইংরেজী “k” বা “c” এবং আরবী “কাফ” এর প্রকৃত উচ্চারণ সব সময় এক নয়। এর ফলে একটি মাত্র লিপির সাহায্যে বিভিন্ন ভাষার বর্ণ উচ্চারণ করতে গেলে তা কোন একটি ভাষায় ঠিক থাকলেও অন্য ভাষায় বিকৃত হয়ে যায় । তাই এই নিয়মে লিপি ব্যবহার করা হলে ভাষা তার পূর্বের উচ্চারণ হারায় । মানুষ কোনভাবেই চায় না যে তার ভাষা বিকৃত হোক । বাংলাদেশে এই ভাষার জন্য মানুষ জীবন বিসর্জন দিয়েছে ।

      দ্বিতীয় সমস্যাটি হচ্ছে, ভাষা লেখার যে লিপিগুলি আমরা ব্যবহার করি তা কোন বিজ্ঞানসম্মত চেষ্টার ফসল নয়, একথা সবারই জানা আছে । প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকে মূলত “চেষ্টা ও সংশোধনী”র মাধ্যমে এগুলি গড়ে উঠেছে । অনেক ক্ষেত্রেই এগুলি লেখা বেশ কষ্টকর, সময়সাপেক্ষ এবং ভালো করে না লিখলে পাঠোদ্ধারও অসম্ভব । কিন্তু তা সত্ত্বেও কেউ যখন ঐ লিপির বদলে অন্য কোন লিপি লেখার প্রস্তাব নিয়ে আসবে, তখন স্বাভাবিক কারণেই মানুষ বলবে, ‘অনেক কষ্ট করে এগুলো লেখা আয়ত্ত করেছি, এখন তা কেন বদল করবো ?’ তবে এ কথা সত্য যে তা তারা করতে রাজী হবে যদি নতুন লিপির কোন বিশেষ সুবিধা বা গুণ থাকে ।

      সাসলিপির বৈশিষ্ট্য:

      সাস কোন পূর্ণাঙ্গ ভাষা নয়, এটি একটি লিপি । এই লিপির নিজস্ব কোন উচ্চারণ নেই, বরং যে ভাষা লিখতে সাস লিপি ব্যবহার করা হয় লিপিগুলি সেই ভাষার বর্ণগুলির প্রচলিত উচ্চারণই গ্রহণ করে । এর ফলে ভাষার কথ্যরূপটি একেবারে অবিকৃত থাকে, কেবলমাত্র তার লিখিত রূপটি বদলে যায় । পূর্বে আবিষ্কৃত সমন্বিত লিপিগুলি যেখানে লিপি নির্ধারণ করতো উচ্চারণের মিলের উপর ভিত্তি করে, সেখানে সাসলিপিতে লিপি নির্ধারণ করা হয় বর্ণমালায় প্রতিটি বর্ণের গাণিতিক অবস্থানের উপর ভিত্তি করে ।

      এখন আমরা সাসলিপির উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্যগুলি বর্ণনা করবো ।
      ১। সাসলিপির বর্ণগুলি একটি অত্যন্ত সহজ নিয়ম বা মূলসূত্র অনুসরণ করে তৈরী করা হয়েছে । এই সূত্রটি এত সোজা যে কোন শিশুকে তা বুঝিয়ে দিলে সে নিজেই বর্ণগুলি পর পর তৈরী করে নিতে পারে ।
      ২। সাসলিপির বর্ণগুলি সিম্বল বা আকার এর পরিবর্তে শুধুমাত্র সোজা দাগ (STROKE) দিয়ে তৈরী, যেখানে কোনাকুনি যাওয়া, বাঁকানো, প্যাঁচানো, এক দাগের উপর দিয়ে আবার দাগ দেয়া, পেছনে এসে বর্ণের উপরে/ নীচে/ আগে/ পরে চিহ্ন দেয়া, এসব কিছুই নেই । ফলে লিপিগুলি অত্যন্ত সহজে এবং দ্রুত লেখা যায় । আবার ব্যক্তির ভিন্নতার কারণে লিখিত লিপি পাঠে ভুল বোঝাবুঝির (CONFUSION) সম্ভাবনাও থাকে না । একই কারণে ব্যক্তিভেদে হাতের লেখা ‘ভাল’ বা ‘মন্দ’ হবার সম্ভাবনাও কমে যায় ।
      ৩। অধিকাংশ ক্ষেত্রে মাত্র ২, ৩ বা ৪টি দাগ (চিত্র-১) দিয়ে লিপিগুলি তৈরী করা হয়েছে বলে এগুলি লেখা ও চেনা অত্যন্ত সহজ । সাধারণ ভাবে যে সব ভাষা শুধুমাত্র বর্ণের মাধ্যমে লেখা হয় তা লেখার জন্য ৪টি এবং যে সব ভাষায় বর্ণ ও বর্ণচিহ্ন ব্যবহৃত হয়, তাদের জন্য সর্বোচ্চ ১৫ থেকে ২০ টি স্ট্রোকের প্রয়োজন হয়।
      ৪। কম সংখ্যক স্ট্রোক দিয়ে তৈরী বলে এগুলি টাইপ করার জন্য স্বল্পসংখ্যক চাবি (KEY) লাগে ।

      সাসলিপি তৈরীর মূলসূত্র:

      সাসলিপি এমন একটি লিপি যা কয়েকটি মূলসূত্র জানার পর যে কেউ নিজেই তৈরী করে নিতে পারে । এই মূলসূত্রগুলি হচ্ছে,
      ১। প্রতিটি হরফ একটি বর্গক্ষেত্রের মধ্যে আবদ্ধ থাকবে, কোন চিহ্নই এই বর্গক্ষেত্রের বাইরে যাবে না ।

      ২। প্রতিটি হরফে বর্গক্ষেত্রের মাঝ বরাবর থাকবে একটি আনুভূমিক লাইন (১নং চিত্র, প্রথম লাইন)।

      ৩। বিভিন্ন ভাষার বর্ণগুলির প্রতি ৫টিকে নিয়ে একটি গ্রুপ বা বর্গ তৈরী করা হবে । এর প্রথম বর্ণটি হবে বর্গ প্রধান । বাংলায় এটি প্রচলিত আছে । অন্য ভাষায়ও এভাবে ৫টির বর্গ তৈরী করায় কোন সমস্যা নেই ।

      ৪। সাসলিপিতে প্রথমে বর্গপ্রধানগুলি তৈরী করা হবে । এ কাজে প্রথমে আনুভূমিক লাইন (১নং চিত্র,প্রথম লাইন) টি ব্যবহার করা হবে। এরপর উলম্ব অর্ধ-লাইন (১নং চিত্র, দ্বিতীয় লাইন) টি আনুভূমিক লাইনের নীচে বাম থেকে শুরু করে একে একে ২নং চিত্রে দেখানো ৪টি স্থানে ঘড়ির কাঁটার বরাবরে ঘুরে ঘুরে বর্গপ্রধানগুলি তৈরী করবে । ২নং চিত্র দেখানো ৪টি স্থান হল, (প্রথম) নিচে বামে, (দ্বিতীয়) উপরে বামে, (তৃতীয়) উপরে ডানে এবং (শেষে) নীচে ডানে । এই নিয়মে ১৪ টি বর্গ প্রধান তৈরী করা সম্ভব। ১৪টি বর্গ প্রধান থেকে (৫ X ১৪ =) ৭০টি বর্ণের বর্ণমালা তৈরী করা যায় । কোন ভাষার বর্ণসংখ্যা বেশী হলে প্রয়োজনে আরও ছোট উল্লম্ব লাইন ব্যবহার করে আরও ১৪ টি বর্গপ্রধান তৈরী করা যায়।

      ৫। বর্গপ্রধান তৈরী করার পর প্রতিটি বর্গপ্রধান থেকে এই বর্গের অন্য বর্ণগুলি তৈরী করা হবে । এটি করার জন্যও একই নিয়ম অনুসরণ করা হবে । এক্ষেত্রে ছোট উলম্ব লাইন (১নং চিত্র, তৃতীয় লাইন) টি বর্গপ্রধানটির ৩নং চিত্রে দেখানো ৪ টি স্থানে ক্রমান্বয়ে ঘড়ির কাঁটার দিকে ঘুরে ৪টি বর্ণ তৈরী করবে । নীচের ছবি দেখুন:

      লিপি দ্বারা শব্দ তৈরী:

      যে সব ভাষা শুধুমাত্র বর্ণ দিয়ে তৈরী হয়, তাদের ক্ষেত্রে ওপরের নিয়মে যে লিপি তৈরী হবে তা পর পর বসিয়ে শব্দ তৈরী করে নিলেই লিখিত ভাষা হয়ে যাবে । ইংরেজী এই ধরনের একটি ভাষা । তবে ইংরেজীতে ক্যাপিটাল ও স্মললেটার আছে । উপরের নিয়মে যে বর্ণগুলি তৈরী হবে সেগুলি স্মললেটার । প্রতিটি স্মল লেটারের নীচে ছোট আনুভূমিক লাইন (১নং চিত্রের ৪নং লাইন) টি দিলেই তা হয়ে যাবে ক্যাপিটাল লেটার ।

      যে সব ভাষায় বর্ণ ছাড়াও স্বর বা ব্যঞ্জন চিহ্ন ব্যবহৃত হয় ( যেমন বাংলা ও আরবী ), তাদের ক্ষেত্রে বিভিন্ন চিহ্ন (যেমন, া-কার, ে-কার, জের, জবর, পেশ ইত্যাদি) ব্যবহার করার জন্য সাসলিপির মধ্যভাগ খালি রাখা হয়েছে। এই খালি মধ্যভাগে উপরে, নীচে বা দুই স্থানে বিভিন্ন দৈর্ঘ্যের এবং ধরনের উল্লম্ব লাইন ব্যবহার করে সেগুলি উচ্চারণ করা যায়।

      কিছু উদাহরণ: সাসলিপি লেখার মূলসূত্র চিত্র সহকারে উপরে বর্ণনা করা হয়েছে । এখন প্রবন্ধের আয়তন সংক্ষেপ করার জন্য আমরা শুধুমাত্র নিচের কয়েকটি উদাহরণগুলি দেব: (০১) বাংলা ও ইংরেজী ভাষার বর্গপ্রধান ও তাদের সাসলিপি, (০২) বর্গপ্রধান থেকে বর্গের অন্য বর্ণ তৈরী এবং (০৩) বাংলাভাষার স্বর ও অন্যান্য চিহ্ন ।

      ৪নং চিত্র: বাংলা ও ইংরেজী বর্গপ্রধান ও তাদের সাসলিপি

      ৫ নং চিত্র: বর্গ প্রধান থেকে বর্গের অন্যান্য বর্ণ

      ৬নং চিত্র: বাংলা স্বর ও অন্যান্য চিহ্ন

      যুগোপযোগী বাংলাভাষা লেখা

      ভূমিকা:

      সাসলিপির মাধ্যমে কিভাবে একটি মাত্র লিপির সাহায্যে পৃথিবীর সব ভাষা লেখা যায় তার মূল সূত্রগুলি উপরে বর্ণনা করা হয়েছে । তবে মূলসূত্র জানার পরও বিভিন্ন ভাষার নিজস্ব চাহিদা পূরণ করার জন্য কিছু কিছু সংস্কারের প্রয়োজন হবে । বাংলাভাষার ক্ষেত্রেও এই কথা প্রযোজ্য । প্রচলিত বাংলা হরফের পরিবর্তে সাসলিপিতে বাংলাভাষা লেখা হলে প্রধান যে কয়টি সুবিধা পাওয়া যাবে তা হল- (০১) লেখা সহজ ও দ্রুত হবে, (০২) হাতের লেখা সুন্দর – অসুন্দরের বিষয়টি গৌণ হয়ে যাবে এবং (০৩) লেখায় দুর্বোধ্যতা বা confusion কমে যাবে ।

      কিন্তু এত কিছুর পরেও বাংলা লেখা যে একেবারে আধুনিক ভাষার সুবিধা পাবে তা বলা যায় না । এর কারণ বাংলাভাষার লিপিতে কিছু দুর্বলতা আছে । যেমন,
      (০১) অনেকগুলি প্রায় সমোচ্চারিত বর্ণ থাকায় এই ভাষায় বানানভুল অত্যন্ত বেশী।
      (০২) স্বরচিহ্ন, সংযুক্ত বর্ণ, ফলা ইত্যাদি থাকার কারণে লেখা অত্যন্ত জটিল ও ধীরগতির ।
      এক্ষেত্রে আমাদের প্রস্তাব, সংস্কার যদি করাই হয় তাহলে আরও একটু বেশী সংস্কার করে তাকে যুগোপযোগী করা উচিত। এই উদ্দেশ্যে আমরা নিম্নলিখিত সংস্কার প্রস্তাবসমূহ রাখছি ।

      প্রস্তাব ০১: অপ্রয়োজনীয় বা স্বল্প প্রয়োজনীয় বর্ণ ও বর্ণচিহ্ন বাদ দেয়া । বিকল্প বা প্রায় সমোচ্চারিত বর্ণ থাকার কারণে বাংলা বর্ণমালা নিচের স্বরবর্ণ, ব্যঞ্জনবর্ণ ও স্বরচিহ্নগুলি বাদ দেয়া যায় – ঙ, ঞ, য, ষ, ঈ, ঊ, ঐ, ঔ, রেফ, ্য্য-ফলা, র-ফলা, া, ি, ী, ু, ূ, ৃ, ে, ৈ, ো ৌ । এগুলি বাদ দিলে নীচের ৩০টি ব্যঞ্জনবর্ণ আর ১০ টি স্বরবর্ণ, এই ৪০টি বর্ণ পাওয়া যায় । এর বাইরে প্রয়োজন হয় আর ১০তী বিশেষ বর্ণের । এই মোট ৫০টি বর্ণ দিয়ে বাংলা ভাষার ব্যাকরণ মেনে স্বচ্ছন্দে সব কিছু লেখা যায় । আর এই লেখায় ইচ্ছে করেও বানান ভুল করা যায় না ।

      ব্যঞ্জনবর্ণ (৩০ টি): বর্গ-০১: ক খ গ ঘ য়, বর্গ-০২: চ ছ জ ঝ ল,
      বর্গ-০৩: ট ঠ ড ঢ হ, বর্গ-০৪: ত থ দ ধ ন,
      বর্গ-০৫: প ফ ব ভ ম, বর্গ-০৬: র ড় স শ অ ।
      স্বরবর্ণ ও চিহ্ন (১০ টি): বর্গ-০৭: আ অ্যা ই উ ঋ, বর্গ-৮: এ ও ং ঃঁ।
      বিশেষ বর্ণ:( ১০টি) অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে যে সাধারণ ভাবে যুক্তবর্ণের দ্বারা লেখা সম্ভব হলেও বিশেষ কতকগুলি শব্দ উচ্চারণের জন্য প্রায় ১০টি বিশেষ বর্ণ / যুক্তবর্ণ প্রয়োজন হয়। এগুলি হলও –
      বর্গ-০৯: ঙ্ক (ঙ+ক), ক্ষ (ক+ষ), ঙ্গ (ঙ+গ), ঞ্চ(ঞ+চ), ঞ্ছ(ঞ+ছ),
      বর্গ-১০: ঞ্জ(ঙ+জ),জ্ঞ (ঞ+গ),ষ্ণ (ষ+ঞ), হ্ম(ম+হ), ণ্ড (ণ+ড)।

      প্রস্তাব ০২: স্বরচিহ্নের বদলে স্বরবর্ণ ব্যবহার করা । বাংলাভাষায় সকল স্বরচিহ্নেরই বর্ণ আছে । সাসলিপির ছোট আনুভূমিক লাইনটি স্বরবর্ণের নীচে ব্যবহার করে ঐগুলিকে স্বরচিহ্ন রূপে ব্যবহার করা যায় ।
      প্রস্তাব ০৩: যুক্তবর্ণ লেখা সহজ করা । বাংলায় দুই ধরনের যুক্তবর্ণ আছে । যেমন-
      (০১) প্রথম ধরনের যুক্তবর্ণ – পূর্ববর্তী বর্ণের উচ্চারণ সম্পূর্ণ থামিয়ে পরেরটির উচ্চারণ করা । যেমন ঃ চেষ্টা ( চেশ –টা), তক্তা (তক – তা) ইত্যাদি । হসন্তের সাহায্যে এগুলি সহজেই লেখা হয় । সাসলিপির ছোট আনুভূমিক লাইনটি বর্ণের নীচে ব্যবহার করে এই যুক্তবর্ণ লেখা বা উচ্চারণ করা যায় ।
      (০২) দ্বিতীয় ধরনের যুক্তবর্ণ -পরবর্তী বর্ণের উচ্চারণের সাথে পূর্বেরটির উচ্চারণ মিশিয়ে ফেলা । যেমন ঃ স্পর্ধা (স+প র্ধা), ব্রত (ব+র ত), অক্লান্ত (অ ক+ল া ন্ত) ইত্যাদি । এগুলিকে ফলা ও বলা হয় । ছোট আনুভূমিক লাইনটি বর্ণের উপরে ব্যবহার করে এগুলি লেখা যায় ।

      শিশু শিক্ষায় প্রচলিত লিপি ও সাসলিপির তুলনামূলক ব্যবহার:

      প্রচলিত বাংলালিপিতে লেখাপড়া শেখার জন্য এখন শিশুদেরকে সবার আগে বর্ণমালাগুলির উচ্চারণ শিখতে হয় । সারা পৃথিবীতেই এই প্রয়োজনে ছবির বই ব্যবহার করা হয়, যেখানে সাধারণভাবে রঙ্গিন ছবিগুলির নামের প্রথম বর্ণটিই বর্ণমালার অক্ষর । অনেক শিশুই একমাসে এই উচ্চারণগুলি শিখে ফেলে । এর পর তাদেরকে মানসিক ভাবে প্রতিটি বর্ণের উচ্চারণের সাথে একটি করে লিপি সংযুক্ত করতে হয় । সব বর্ণমালা একসাথে থাকা কালে তারা তা সহজে চিনতে পারে, কিন্তু বিচ্ছিন্ন ভাবে চিনতে বেশ সময় লাগে । সাধারণ ভাবে এ কাজে দুই থেকে তিন মাস সময় লাগে । এরপর লেখা শেখানোর পালা । একটি লাইন ডানে, বামে, উপরে, নীচে বাঁকা সোজা করে, ধরা যাক, তাদেরকে অনেক কষ্টে ‘ক’ শেখানো হল । এরপর নতুন করে শেখানো হবে ‘খ’ এবং এমনই চলতে থাকবে । একাজে বাংলাদেশে শিশুদের মোটামুটি বারোমাস সময় লেগে যায় । এরপর আ-কার, উ-কার, সংযুক্ত বর্ণ ইত্যাদি শেখানো হবে । দরকার হবে আরও অন্তত: ছয় মাস ।

      সাসলিপি লেখা শেখার জন্যও বর্ণগুলির উচ্চারণ শিখতে হবে । ধরা যাক, একাজে সময় লাগলো এক মাস । কিন্তু এর পরের কাজটি এত সোজা (লিপিগুলি পর পর সামঞ্জস্য রেখে নিজে নিজেই তৈরী হয়ে যায়, কোন বাঁকা বা প্যাঁচানো লাইন নেই, আ-কার, উ-কার, সংযুক্ত বর্ণের ঝামেলা নেই ) যে এই কাজে একেবারে সাধারণ মানের শিশুদেরও পাঁচ মাসের বেশী লাগার কথা নয় । তাহলে শিশুদের মোট শিক্ষাকাল আঠারো মাস থেকে কমে দাঁড়ায় ছয় মাসে । এভাবে যদি শিশু শিক্ষাকাল একবৎসর কমে যায়, তাহলে একটি দেশের কোটি কোটি শিশুর জন্য ব্যয়িত উপকরণ, এনার্জি, শিক্ষক ও অভিভাবকের পরিশ্রম খাতে যে বিপুল সাশ্রয় হবে তা সহজেই অনুমান করা যায় ।

      উপসংহার:

      “পৃথিবীর সকল ভাষা লিখতে সক্ষম” এই দাবী নিয়ে আসা সাস লিপির জন্ম মাত্র ২০০৯ সালের নভেম্বর মাসে । স্বাভাবিক ভাবেই এটি প্রমাণের জন্য সময়ের প্রয়োজন । এই প্রবন্ধে “সাসলিপি” নামে যে লিপি দেখান হয়েছে, তার সাথে প্রচলিত বাংলালিপির নিরপেক্ষ তুলনা করা কোন বাংলাভাষীর পক্ষেই সম্ভব নয় । এর কারণ, আজন্মকাল প্রচলিত বাংলালিপি দেখে তাদের কাছে সেগুলি মনে হয় পরমাত্মীয়, এমনকি প্যাঁচানো ঘোচানো হলেও । অন্য দিকে সাসলিপি সহজ হলেও তাদের কাছে মনে হবে অদ্ভুত । আমরা বাংলা, ইংরেজি বা আরবী লিপির সঙ্গে পরিচিত । এর সব গুলিই “ফিগার” ধরনের লিপি । চীনা, জাপানী বা কোরিয়ানদের স্ট্রোক ভিত্তিক লিপির সঙ্গে আমাদের তেমন পরিচয় নেই । বাস্তব সত্য এই যে স্ট্রোক দিয়ে লেখা খুবই সহজ । তবে চীনা, জাপানী বা কোরিয়ান ভাষায় স্ট্রোকের সংখ্যা বেশী হওয়ায় এবং সেগুলির কোন বৈজ্ঞানিক যৌক্তিকতা না থাকায় সেগুলি শেখা বা লেখা তেমন সহজ নয়।

      (০১) এই প্রবন্ধে প্রচলিত বাংলালিপি ও সাসলিপি পাশাপাশি দেখানো হয়েছে। এই দুটি তুলনা করলে সহজেই বোঝা যায় যে, প্রচলিত একটি লিপি লিখতে যে সময় বা কষ্ট লাগে, ঐ সময়ে তার চেয়ে সহজে ৪, ৫ বা তার চেয়ে বেশি সংখ্যক সাসলিপি লেখা সম্ভব ।
      (০২) সাস লিপি তৈরীর জন্য যে “লজিক” বা যুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে তাতে এটি শিখতে প্রচলিত লিপির চেয়ে অনেক কম সময় লাগবে ।
      (০৩) বাংলা ভাষার কিছুটা সংস্কার সাপেক্ষে এখানে যে সাসলিপির প্রস্তাব করা হয়েছে তা করা হলে “বানান ভুল” নামক জিনিসটি বাংলা ভাষা থেকে দূর হয়ে যাবে ।
      (০৪) ছাপার অক্ষরে সব লিপিই সুন্দর দেখায় । কিন্তু ঔগুলি আমরা যখন লিখতে যাই তখনই নানা প্যাঁচ ও টান এসে লেখাকে দুর্বোধ্য করে ফেলে । অনেক ভালছাত্র শুধুমাত্র হাতের লেখা খারাপ বলে পরীক্ষায় ভাল ফল করতে পারে না । সাসলিপি দুর্বোধ্য হবার কোন যৌক্তিক কারণ নেই । সেই সঙ্গে এই লিপিতে হাতের লেখা খুব খারাপ হবারও কোন সুযোগ নেই ।
      (০৫) সরকার মাঝে মাঝেই নিরক্ষরতা দূর করার পরিকল্পনা গ্রহণ করে থাকেন এবং আমরা জানি, পরে তা সফল হয় না । সাসলিপিতে একটি আদর্শলিপি এবং শুধুমাত্র প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর বইগুলি লিখে এ ধরনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হলে তা যে সফল হবে তা একরূপ নিশ্চিন্তে বলা যায় ।

      পৃথিবীতে এক আশ্চর্য জাতি এই বাঙ্গালী জাতি । দীর্ঘকাল ভারতের অসংখ্য জাতিগোষ্ঠীর সাথে ঘনিষ্ঠ ভাবে বসবাস করে, ঔপনিবেশিক শক্তির বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে, একই পরিবেশ ও আবহাওয়ায় জীবন কাটিয়েও তারা তাদের স্বতন্ত্র সংস্কৃতি বজায় রেখেছে । একই ধর্মের মানুষের অন্যায় শোষণ তারা যে শুধু মেনে নেয় নি তাই নয়, তাদের শোষণের বিরুদ্ধে মরণপণ যুদ্ধ করেছে। সামরিক দিক দিয়ে অত্যন্ত শক্তিশালী একটি রাষ্ট্র এবং পৃথিবীর দুইটি পরাশক্তির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে মাত্র নয় মাসে তারা স্বাধীনতা লাভ করেছে । এমন দৃষ্টান্ত পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল । ধর্মীয় প্রভাব ও রাষ্ট্রীয় আনুগত্য অস্বীকার এবং পেশীশক্তিকে পরাজিত করার যে প্রচণ্ড শক্তি তারা দেখিয়েছে তার উৎস তাদের সংস্কৃতি । আর তাদের সংস্কৃতির ধারক তাদের মাতৃভাষা, বাংলাভাষা । এই ভাষা নোবেল পুরস্কার পেয়ে ইতিমধ্যেই বিশ্বে তার উপযুক্ত স্থান লাভ করেছে । এমনকি মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষায় জীবনদানের বিরল গৌরবও এই জাতির ।

      এতো সাফল্য এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এতো গুরুত্ব পাবার পরেও আমরা দুঃখের সাথে লক্ষ্য করি, তরুণ প্রজন্ম বাংলা লেখায় আগ্রহী নয় । সুযোগ পেলেই তারা ই-মেইল বা মেসেজে বা বাংলার পরিবর্তে রোমান হরফ ব্যবহার করে । এর ফলে বাংলা ভাষার উচ্চারণ ক্রমে ক্রমেই বিকৃত হয়ে যাচ্ছে । আমরা জানি, বিদেশীরা বাংলা খুব পছন্দ করে, কিন্তু লেখার জটিলতায় আর বানান ভুলের ভয়ে তারা বাংলা শিখতে ভয় পায় । আমাদের অভিজ্ঞতা আছে, তিন পাতা ইংরেজি লিখতে যে সময় ও পরিশ্রম লাগে এক পাতা বাংলা লিখতে তার চেয়ে বেশী সময় ও পরিশ্রম লাগে ।

      এসব কারণে ইতিপূর্বে অনেকবার বাংলাভাষা সংস্কার করার প্রস্তাব করা হয়েছিল । তবে সেই সব সংস্কার করা হলে এই ভাষার উচ্চারণে বেশ পরিবর্তন আসতো । সাসলিপির মাধ্যমে সংস্কার হলে উচ্চারণে বিন্দুমাত্র পরিবর্তন আসবে না । সাস শুধু বাংলা ভাষার জন্য আসে নি । এই লিপিতে এমন সব গুণাবলী সন্নিবেশিত করা হয়েছে যাতে ‘কোনরকম উচ্চারণ বিকৃতি না ঘটিয়ে’ এর মাধ্যমে পৃথিবীর যে কোন ভাষা লেখা সম্ভব হয় ।

      আসুন এখন আমরা কল্পনা করি, বাংলা লেখার সংস্কার করা হলে এবং না করা হলে কি হতে পারে। যদি সাসলিপি গ্রহণ করে বাংলালেখার সংস্কার করা হয়, তাহলে আমাদের শিশুরা অনেক সহজে বাংলা লিখতে পারবে, সঙ্গত কারণে বিদেশীরাও এই ভাষা শিখতে আগ্রহী হবে । ইতিমধ্যে অনেক বিদেশী এই ভাষার গান ও নাটক শুনে মুগ্ধ হয়েছে, কিন্তু লেখ্য ভাষার জটিলতার কাড়নে শেখার আগ্রহ হারিয়েছে । বাংলাদেশে নিরক্ষরতা দূর করাটা কোন সমস্যাই থাকবে না । আমাদের কথা, কবিতা, সাহিত্য, গান, নাটক, সিনেমা একেবারে অবিকৃত বা অক্ষুণ্ণ থাকবে । আমাদের ভাষার যে বিশাল লিখিত সম্পদ কাগজে লেখা আছে তারও হারিয়ে যাবে না । আসলে কাগজের বই কিছু বৎসর পর পরপরই নতুন করে ছাপাতে হয় । এক্ষেত্রে পরবর্তী সংস্করণগুলি সাসলিপিতে ছাপালেই আর কোন সমস্যা হবে না । যদি প্রশ্ন করা হয়, এই ছাপানোর কাজে কোন সমস্যা হবে কি না, তাহলে তার উত্তরে বলা যায়, কম্পিউটারে প্রচলিত বাংলার চেয়ে সাসলিপি লেখা অনেক সহজ । তাছাড়া কম্পিউটারে মাত্র কয়েকটি সুইচ টিপে “আগে কম্পোজ করা” যে কোন প্রচলিত বাংলালিপিকে মুহূর্তে সাসলিপিতে রূপান্তর করা যায়।

      আসুন, এবার আমরা দেখি, বাংলালেখার সংস্কার করা না হলে কি হতে পারে। একজন মানুষের সামনে যখন কোন কাজ করার দুটি পথ খোলা থাকে, তখন স্বাভাবিক ভাবেই সে সোজা পথটি গ্রহণ করে থাকে । মোবাইলে, কম্পিউটারে আজকের প্রজন্ম ঠিক এই কাজটিই করে চলেছে । এর ফল যে শুভ নয় তা বলাই বাহুল্য। মজার ব্যাপার এই যে, যদিও রোমান হরফে উচ্চারণ বিকৃতি ঘটিয়ে বাংলালেখা প্রচলিত বাংলাহরফে লেখার চেয়ে সহজ, সাসলিপিতে অবিকৃত উচ্চারণে তা লেখা এর চাইতেও অনেক সহজ ।

      এটা সত্য যে দীর্ঘ দিনের চেষ্টায় অনেক কষ্ট করে মানুষ তাদের ভাষার যে বর্ণ সমূহ লেখা আয়ত্ত করেছে তা তারা চট করে পরিবর্তন করতে চাইবে না। তবে নতুন উদ্ভাবিত লিপির উল্লেখযোগ্য গুণ বা সুবিধা থাকলে তা করায় কোন আপত্তি থাকার কথা নয় । আমরা যারা অনেক কষ্ট করে এই কঠিন ভাষা লেখা আয়ত্ত করে বসে আছি, তারা ছাড়াও আমাদের আছে নতুন প্রজন্ম । এই নতুন প্রজন্মকে গুরুত্ব দিতে, আমরা যে কষ্ট করেছি তা থেকে তাদেরকে নিষ্কৃতি দিতে আমরা তাদের হাতে এই সহজ লিপিটি তুলে দিতে পারি । আমাদের মনে হয় নতুন শিক্ষার্থীকে যদি তাদের প্রচলিত লিপি আর সাসলিপির মধ্যে একটি বেছে নিতে বলা হয় তাহলে তারা পরেরটিই পছন্দ করবে ।

      অর্জন আর বর্জনের মধ্য দিয়েই সভ্যতা এগিয়ে চলে । আমরা যদি আবেগের বশে টাইপরাইটার ধরে রাখতাম, তাহলে কম্পিউটার আসতো না, টেলিগ্রাফ আঁকড়ে ধরে থাকলে মোবাইল আসতো না । বাংলাভাষা লেখার ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য ।

      সমাপ্ত

      Prof . Bijon B. Sarma

      June 28, 2011 at 7:11 am


Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: